কবুতর মাদি না নর কবুতর
কবুতর টিপস

কিভাবে বুঝবেন একটি কবুতর মাদি না নর কবুতর ?

কিভাবে বুঝবেন একটি কবুতর মাদি না নর কবুতর ? এই প্রশ্ন এর কোন সহজ ও সরাসরি উত্তর নেই। অনেক অভিজ্ঞ কবুতর পালনকারীও মাঝে মাঝে মাদি না নর কবুতর চিনতে ভুল করেন। যদিও একমাত্র বিজ্ঞানিক পন্থা হোল কবুতরের DNA টেস্ট করা। আসুন জেনে নেই কিভাবে বুঝবেন একটি কবুতর পুরুষ না মহিলা কবুতর। এই পোস্টটিতে কিছু উপায় ও পধতি দেয়া হল কবুতর মাদি না নর বের করার।

পুরুষ কবুতরের কিছু বৈশিষ্ট্য :

  1. পুরুষ কবুতর শরীর গঠনে মহিলা কবুতরের চেয়ে বড় হয়। মাথাটা একটু বড় হয়।
  2. পুরুষ কবুতরের চোখ মহিলা কবুতরের মত not so round
  3. অনেক বেশি জেদি হয়।
  4. কোন মহিলা কবুতর দেখলে বুক ও লেজ এর পালক ছড়িয়ে চারপাশে হাঁটবে।
  5. বেশির ভাগ সময় শব্দ করে।
  6. পুরুষ কবুতর সাধারনত সকাল থেকে বিকাল পর্যন্ত ডিমে তা দিয়ে থাকে।
  7. ওজনে মহিলা কবুতর থেকে ভারি হয়।
  8. পুরুষ কবুতর তার mate মহিলা কবুতরকে অন্য পুরুষ কবুতর থেকে সরিয়ে রাখে।
  9. নতুন খোপ বা খাঁচাই এলে পুরুষ কবুতর কিছুকন শব্দ করে circle করে ও পরে বসে গিয়ে তার mate মহিলা কবুতরকে আসার জন্য ইশারা করে।
  10. sex করার প্রাক্বালে মহিলা কবুতর তার ঠোঁট পুরুষ কবুতরের মুখে দিয়ে থাকে। ( it is also called kissing)
  11. পানি পান করার সময় পুরুষ কবুতর তার ঠোঁট এর সম্পূর্ণ অংশ পানিতে প্রবেশ করায়।

pigeon kissing

 

মহিলা কবুতরের কিছু বৈশিষ্ট্য :

  1. মহিলা কবুতর শরীর গঠনে পুরুষ কবুতরের চেয়ে ছোট হয়।
  2. মহিলা কবুতরের চোখ অনেক বেশি round থাকে।
  3. অনেক শান্ত প্রকৃতির হয়।
  4. কদাচিৎ শব্দ করে। ( not regularly )
  5. মহিলা কবুতর সাধারনত বিকাল থেকে পরদিন সকাল পর্যন্ত ডিমে তা দিয়ে থাকে।
  6. ওজনে মহিলা কবুতর কম ভারি হয় পুরুষ কবুতর থেকে ।
  7. পানি পান করার সময় মহিলা কবুতর শুধু তার ঠোঁট এর কিছু অংশ পানিতে প্রবেশ করায়।

কবুতর মাদি না নর কবুতর চেনার উপায় ও পধতিঃ

মাথার , চোখ , নাক এর গঠন ও আকৃতি >>>
অধিকাংশ breeding এ পুরুষ কবুতর এর মাথা অনেকটা round থাকে। আর মহিলা কবুতর এর মাথা flattened হয়। সাধারনত পুরুষ কবুতর এর শরীর আর গঠন অনেকটা rougher হয়। মহিলা কবুতরের চোখ অনেক বেশি round থাকে। পুরুষ কবুতর এর নাক মহিলা কবুতর থেকে বড় হয়।

শব্দ করা বা না করা >>>
পুরুষ কবুতর বেশির ভাগ সময় শব্দ করে ও বুকের পশম ফুলিয়ে circle করে মহিলা কবুতর এর চারপাশ হাটে। যখন শব্দ করে ও বুকের পশম ফুলিয়ে circle করে তখন পুরুষ কবুতর এর লেজ মাটিতে স্পর্শ করে। পুরুষ কবুতরও শব্দ করে কিন্তু কদাচিৎ ।

pigeon sounding

উল্টানো পদ্ধতি: >>>
রেচার কবুতর পুরুষ না মহিলা তা বের করার জন্য এই উল্টানো পধতি ব্যাবহার হয়। কবুতরকে সুন্দর করে মাথা হাতের নিচে রেখে উল্টিয়ে রাখা হলে কবুতরটি যদি হাতে শুয়ে থাকে তাহলে সেটা মহিলা কবুতর। আর যদি হাতে থেকে উঠার চেষ্টা করে বা শুয়ে না থাকে তাহলে সেটা পুরুষ কবুতর। রেচার কবুতর ছাড়া অন্য breeding এর কবুতর এর ক্ষেত্রে উল্টানো পধতি কার্যকর নাও হতে পারে। see below picture…

Toe পদ্ধতি: >>>
কবুতরের পায়ের অ্যাংগুল সাধারণত ৪ টি । সামনে ও পিছনে একটি করে দুইটি এবং বাপে-ডানে একটি করে দুইটি। পিছনের অ্যাংগুল বাকি গুলো থেকে ছোট হয়। পুরুষ কবুতর এর বামে-ডানের অ্যাংগুল গুলো সমান হয়না কিন্তু মহিলা কবুতর এর বামে-ডানের অ্যাংগুল গুলো সমান। see below picture…

toe method

Wing পদ্ধতি: >>>
পুরুষ কবুতর এর দু পাশের ডানা দুই হাত দিয়ে শূন্য এ ধরে ( কবুতরের পর জানার জন্য আমারা যে ভাবে ডানা ধরি সেভাবে না ) shake করলে পুরুষ কবুতরের লেজ সোজা থাকবে অথবা নিচে down হয়ে থাকবে। মহিলা কবুতর এর দু পাশের ডানা দুই হাত দিয়ে শূন্য এ ধরে shake করলে মহিলা কবুতরের লেজ উপরে উঠে থাকবে। see below picture…

উপরের সব পদ্ধতি গুলে অবৈজ্ঞানিক। একমাত্র বৈজ্ঞানিক পদ্ধতি: হলে DNA টেস্ট করা । আর সবচেয়ে সহজ পধতি হল কবুতর ডিম দিয়েছে কিনা সেটা দেখা। ধন্যবাদ।

Help others by Sharing...Share on FacebookShare on Google+Tweet about this on TwitterShare on LinkedIn

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *